আজকেই লন্ডনে নেয়া হতে পারে খালেদা জিয়াকে

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে নেওয়ার সুযোগ চেয়ে সরকারের কাছে আবেদন করেছেন তাঁর ছোট ভাই শামীম এস্কান্দার। গতকাল বুধবার (০৫ মে) রাত সাড়ে ৮টার দিকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ধানমণ্ডির বাসায় গিয়ে তিনি আবেদনপত্রটি হস্তান্তর করেন।আবেদনপত্রটি পর্যালোচনার জন্য আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। অনুমতি মিললে আজকের মধ্যেই খালেদাকে লন্ডন নেয়া হতে পারে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে।

বিএনপি চেয়ারপারসন সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানিয়েছে, সরকারের আনুষ্ঠানিক অনুমতি পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই উন্নত চিকিৎসার উদ্দেশে লন্ডন রওনা করবেন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালের সিসিইউতে চিকিৎসাধীন খালেদা জিয়া। আজ বৃহস্পতিবার (৬ মে) যেকোনো সময় তাকে চার্টার্ড বিমানে করে সিঙ্গাপুর হয়ে লন্ডন নেয়া হবে। সঙ্গে খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত চিকিৎসকদল এবং পরিবারের সদস্যরাও থাকবেন।

খালেদা জিয়াকে হাসপাতাল থেকে বিমানবন্দরে পৌঁছে দেয়ার অ্যাম্বুলেন্সও প্রস্তুত রাখা হয়েছে বলে জানা গেছে। তবে বিএনপির পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে এ বিষয়ে এখনো কোন কিছু প্রকাশ করা হয়নি।

এর আগে গতকাল সন্ধ্যা ৭টার দিকে এভারকেয়ার হাসপাতালের হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. শাহবুদ্দিন তালুকদারের নেতৃত্বে ১০ সদস্যের মেডিক্যাল বোর্ড সর্বশেষ অবস্থা পৎসলোচনা করে খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশ নেওয়ার সুপারিশ করে। এর পরপরই পরিবারের সদস্যরা একমত হয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে এ বিষয়ে লিখিত আবেদন করেন।

এর আগে গতকাল দিনে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘ম্যাডামের শরীর আজ (গতকাল) কিছুটা খারাপ হয়েছিল। তাঁর অক্সিজেন কিছুটা বেশি প্রয়োজন হয়েছে। তবে পরে ঠিক হয়ে গেছে।’ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘তাঁকে বিদেশে নেওয়ার ব্যাপারে এখনো কোনো খবর নেই। এটি চিকিত্সক ও তাঁর পরিবারের বিষয়। আর সে রকম কোনো উদ্যোগ নিলে আমরা নিজেরাই গণমাধ্যমকে তা জানাব।’

বিএনপির নির্ভরযোগ্য একাধিক সূত্র জানায়, চেয়ারপারসনকে সিঙ্গাপুরে নিয়ে যেতে পারলে সিদ্ধান্ত নেওয়া সহজ হতো। কারণ সিঙ্গাপুরের ব্যাপারে সরকারের সংশ্লিষ্ট মহলের মনোভাব কিছুটা নমনীয়। কিন্তু সেখানে এই মুহূর্তে বাংলাদেশিদের প্রবেশে বিধি-নিষেধ রয়েছে। একই সঙ্গে কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে ১৪ দিন। এটা খালেদা জিয়ার জন্য বেশ কঠিন হবে। ফলে বিএনপি এটিকে ভায়াবল মনে করছে না।

অন্যদিকে লন্ডনে নিতে হলে খালেদা জিয়াকে প্রায় ১০ ঘণ্টা আকাশপথে ভ্রমণ করতে হবে। অবশ্য তাঁকে এয়ার অ্যাম্বুল্যান্সে নেওয়া হবে। এর পরও এই দীর্ঘ ভ্রমণের ধকল তিনি সইতে পারবেন কি না, চিকিত্সকদের মধ্যে সেই প্রশ্নও আছে। কারণ তাঁকে অক্সিজেন নিতে হচ্ছে।

এদিকে চিকিৎসার জন্য খালেদা জিয়াকে বিদেশে, বিশেষত লন্ডনে নেওয়ার প্রশ্নে সরকারের সংশ্লিষ্ট মহলের সম্মতি পাওয়া কিছুটা কঠিন হয়ে উঠছে। কারণ সেখানে খালেদা জিয়ার ছেলে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান রয়েছেন। অনেকের মতে, এ কারণেই লন্ডনের বিষয়ে সরকারের রাজনৈতিক হিসাব-নিকাশ রয়েছে। কারণ খালেদা জিয়া সেখানে গিয়ে রাজনৈতিক তৎপরতার সঙ্গে যুক্ত হবেন কি না,

তা নিয়ে অনেকের মাঝে নানা সংশয়-সন্দেহ রয়েছে। সে কারণে বিএনপির চেষ্টা সত্ত্বেও চিকিৎসার জন্য খালেদা জিয়ার বিদেশে যাওয়ার বিষয়টি আটকে আছে।বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেন, সরকার রাজি হলে আধাঘণ্টার মধ্যেই সব ব্যবস্থা করা যায়।বিএনপির সংসদ সদস্য হারুনুর রশিদ বলেন, ‘চিকিৎসার জন্য ম্যাডামকে বিদেশে নেওয়া দরকার। কিন্তু এ জন্য আদালতের সিদ্ধান্তের প্রয়োজন নেই। নির্বাহী আদেশবলে তিনি যেমন বাইরে আছেন, তেমনি সরকার চাইলে অ্যাটর্নি জেনারেল এটি আদালতকে বলে দিলেই হয়।’