দিল্লিতে প্রতি ঘণ্টায় ১২ জনের প্রাণ কাড়ছে করোনা

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসে পুরোপুরি বিপর্যস্ত ভারত। দেশটির রাজধানী দিল্লিতে করোনা রোগীদের মৃত্যুর মিছিলে গত কয়েকদিন ধরে প্রতিঘণ্টায় যোগ হচ্ছেন গড়ে ১২ জন। ভারতের কেন্দ্র সরকারের তথ্যমতে, চলতি সপ্তাহে দিল্লিতে প্রতিঘণ্টায় গড়ে ১২ জনেরও বেশি করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে। গত সপ্তাহেই এই সংখ্যা ছিল প্রতিঘণ্টায় গড়ে পাঁচজন।

আর চলতি সপ্তাহে সে সংখ্যা এখন দ্বিগুণেরও বেশি। আজ রবিবার (২৫ এপ্রিল) রাজ্য সরকার জানিয়েছে, ১৯ থেকে ২৪ এপ্রিল দিল্লিতে করোনায় প্রাণ হারিয়েছেন ১ হাজার ৭৭৭ জন আক্রান্ত। অর্থাৎ, ঘণ্টাপ্রতি গড়ে ১২ জনেরও বেশি। অন্যদিকে, গত সপ্তাহের ১২ থেকে ১৭ এপ্রিলের মধ্যে দিল্লিতে ৬৭৭ জনের মৃত্যু নথিবদ্ধ করা হয়েছিল।

যা প্রতি ঘণ্টার হিসাবে গড়ে পাঁচজনের বেশি। করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের ধাক্কায় মহারাষ্ট্র, কর্নাটক, উত্তরপ্রদেশ, গুজরাটসহ একাধিক রাজ্যে দৈনিক সংক্রমণ হু হু করে বাড়ছে। রাজধানী দিল্লিতেও নতুন সংক্রমণ দ্রুতগতিতে ছড়াচ্ছে। কোভিড রোগীদের ভিড়ে দিল্লির হাসপাতালগুলোতে তিল ধারণের জায়গা নেই। করোনার চিকিৎসায় শুরু হয়েছে অক্সিজেনের হাহাকার।

এমন পরিস্থিতিতে গত ২৪ ঘণ্টায় দিল্লিতে ৩৫৭ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে দেশটির কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে। দিল্লিতে কত দ্রুতগতিতে করোনায় মৃতের সংখ্যা বাড়ছে তা গত কয়েকদিনের একটি পরিসংখ্যানে চোখ রাখলে স্পষ্ট হবে। ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বুলেটিনের তথ্যমতে, গত সোমবার (১৯ এপ্রিল) দিল্লিতে ২৪০ জন কোভিড রোগী মারা গিয়েছিলেন। অর্থাৎ গড়ে ঘণ্টাপ্রতি ১০ জন। তবে পরের দিন, মঙ্গলবার তা বেড়ে হয় ২৭৭। এরপর বুধবার এবং বৃহস্পতি যথাক্রমে ২৪৯ ও ৩০০ জনের মৃত্যু হয়।

শুক্রবার এবং শনিবার তা বেড়ে ৩৪৫-এ দাঁড়ায়। শনিবার মোট ৩৫৭ জন মারা যান। অর্থাৎ প্রতি ঘণ্টায় গড়ে ১৫ জনের মৃত্যু হয়েছিল। দিল্লিতে মৃত্যুর সংখ্যা বৃদ্ধির পাশাপাশি দৈনিক সংক্রমণের গতিকে বশে আনা যাচ্ছে না। চলতি সপ্তাহে দৈনিক সংক্রমণ ২৬.১২ শতাংশ থেকে ৩২.২৭ শতাংশে পৌঁছেছে।