দীর্ঘ ৯ বছরেও মৃত থেকে জীবিত হতে পারেননি আব্দুল আওয়াল

দীর্ঘ ৯ বছরেও মৃত থেকে জীবিত হতে পারেননি নেত্রকোনার মদন উপজেলার আব্দুল আওয়াল (৩১)। তিনি জাতীয় একটি দৈনিকে সাংবাদিকতা করেন। তিনি উপজেলা পৌর সদরের পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডের মৃত ফজলুর রহমানের ছেলে।আব্দুল আওয়াল জানান, ২০০৮ সালে ভোটার তালিকায় প্রথম নাম উঠে তার। সবকিছু ঠিক ছিল। এরপর ২০১২ সালে জানতে পারে তালিকায় মৃত হিসেবে উল্লেখ রয়েছে তার নাম। এরপর থেকে আজ পর্যন্ত নির্বাচন অফিসে বারবার আবেদন করেও সংশোধন করতে পারেনি। এতে করে নানা সমস্যায় ভোগছেন তিনি।

তিনি আরো বলেন, ভোটার তালিকায় তার নাম মৃত হওয়ায় চাকরির আবেদনের পাশাপাশি সরকারি সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। এমনকি জাতীয় পরিচয় পত্রের জন্য করোনার টিকা পর্যন্ত দিতে পারেননি তিনি। এ নিয়ে খুবই দুর্বিষসহ দিন অতিবাহিত করছেন তিনি।

তিনি আক্ষেপ করে বলেন, ‘ভোটার তালিকায় নিজেকে জীবিত প্রমাণ করতে আবেদন করার পর গত ৯ বছর ধরে উপজেলা নির্বাচন অফিসে ধর্না দিয়ে আসছি। অফিসাররা শুধু আশ্বাস দিয়েই গেল। কোন কাজ হয়নি। এখনও জীবিত হতে পারলাম না। আমি জানি না কবে জীবিত হতে পারব।’

তিনি আরো জানান, ‘২০১৪ সালে পৌরসভার মেয়রের কাছ থেকে আমি যে জীবিত আছি এ বিষয়ে একটি প্রত্যয়ন নিয়ে কোনোভাবে সাধারণ কাজ কর্ম করছি। আমি সরকারি আবেদনসহ কোনো ধরনের আবেদন করতে পারছি না। আমার সরকারি চাকরির বয়স শেষ হয়ে গেছে। এছাড়াও জমি সংক্রান্ত কোন কাজ করতে না পারায় বিপাকে আছি।

কেন ভোটার তালিকায় এমনটি করা হলো বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।’ একই সঙ্গে দ্রুত বিষয়টি সংশোধন করে জীবিত ভোটার আইডি পাওয়ার জোর সুপারিশ জানিয়েছেন তিনি।জেলা নির্বাচন অফিসার মোঃ আব্দুল লতিফ শেখ বলেন, ‘এ বিষয়ে আমার কাছে লিখিত কোন আবেদন আসেনি। আবেদন আসলে সংশোধন করে দেয়া হবে।