‘মধ্যরাতে বাতিল, সেহরিতে কমিটি ঘোষণা- শাক দিয়ে মাছ ঢাকার মতো’

আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেছেন, ’৭১ সালে পরাজিত শক্তি, জনগণের কাছে নিগৃহীত, প্রত্যাখ্যাত জামায়াত ও বিএনপি বার বার ষড়যন্ত্র করছে। সর্বশেষ স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উৎসব কলঙ্কিত করতে মোদী ঠেকানোর নামে বায়তুল মোকাররম থেকে মিছিল ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও হাটহাজারীতে বাবুনগরী ও মামুনুল হকরা ধ্বংসযজ্ঞ চালিয়েছে।

তিনি বলেন, আজ তারা নতুন লেবাস নিয়েছে। মধ্যরাতে ফেসবুক লাইভে কেন্দ্রীয় কমিটি বাতিল করেন। আবার সেহরির সময় কমিটি ঘোষণা দেন। একে একে হেফাজত নেতাদের পদত্যাগ ও মামুনুল হকের স্বীকারোক্তি দেওয়ায় তারা কমিটি বাতিলের নামে শাক দিয়ে মাছ ঢাকার চেষ্টা করছেন। তাই আপনাদের আর সুযোগ দেওয়া হবে না। তাদের প্রতি সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে।

সোমবার (২৬ এপ্রিল) দুপুরে বগুড়ার শেরপুরের ভবানীপুর ইউনিয়নের বালেন্দা গ্রামে গ্রিনিস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে স্থান লাভ করা ‘শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধু’ প্রকল্পের ধান কর্তন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জাহাঙ্গীর কবির নানক এসব কথা বলেন। উদ্বোধক আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ও শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধু জাতীয় পরিষদের আহ্বায়ক কৃষিবিদ আ ফ শ বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, ইসলাম শান্তির ধর্ম।

যারা এ ধর্মকে ব্যবহার করে রাজনৈতিক ফায়দা লুটতে চায়। আজকের দিনে শপথ নিতে চাই, ওই অপশক্তিকে ঐক্যবদ্ধভাবে মোকাবেলা করা হবে। হেফাজতে ইসলামীর নেতাদের উদ্দেশ্য করে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম কামাল হোসেন বলেন, ওরা ইসলামের হেফাজতকারী নয়; ওরা বিএনপি-জামায়াতের হেফাজতকারী। ওরা তারেক রহমানের এজেন্ট।

ন্যাশনাল এগ্রিকেয়ার ইমপোর্ট অ্যান্ড এক্সপোর্ট লিমিটেড ও প্রকল্পের ডেপুটি হেড অব অপারেশন কৃষি আল আমিন ও অন্যরা জানান, বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকী উদযাপন বঙ্গবন্ধু জাতীয় পরিষদের উদ্যোগে এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ন্যাশনাল এগ্রিকেয়ারের সহযোগিতায় শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি ফুটিয়ে তুলতে গত ২৯ জানুয়ারি শেরপুর উপজেলার ভবানীপুর ইউনিয়নের বালেন্দা গ্রামে প্রায় ১০০ বিঘা জমিতে (১২শ’ বর্গমিটার)

চীন থেকে আনা ডিপ ভায়োলেট রঙের হাইব্রিড (এফ-১) ও দেশের ডিপ গ্রিন ধানের হাইব্রিড চারা রোপণ করা হয়। তারা চীনের চং চিং জং ই সিড কোম্পানি লিমিটেড থেকে এ ধান বীজ সংগ্রহ করেন। কারিগরি সহায়তা দেন ওই প্রতিষ্ঠানের সিনিয়র এগ্রোনমিস্ট মি. লিং জিয়া হু।শস্যচিত্রে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু জাতীয় পরিষদ ও ন্যাশনাল অ্যাগ্রিকেয়ারের তত্ত্বাবধানে বগুড়ার শেরপুর উপজেলার বালেন্দা গ্রামে ১০০ বিঘার

পুরো ক্যানভাসে ‘শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধু’র সেই ক্ষেতের উজ্জীবিত ধান পরিপক্ক হওয়ায় ২৬ এপ্রিল সোমবার সকালে ধান কাটার মধ্য দিয়ে শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধুর ইতি টানা হয়েছে। ১০০ বিঘা ধানক্ষেতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি সর্ববৃহৎ শস্যচিত্র (লার্জেস্ট ক্রপ ফিল্ড মোজাইক) ক্যাটাগরিতে গিনেস রেকর্ডসে জায়গা করে নিয়েছে এ প্রতিকৃতিটি।