মমতাকে অভিনন্দন জানিয়ে যা বললেন মোদি

পশ্চিমবঙ্গে বিধানসভায় টানা তৃতীয়বারের মতো সরকার গড়ার পথে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দল তৃণমূল কংগ্রেস। এই জয়ে মমতাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

আজ রোববার এক টুইটে মোদি বলেন, ‘পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেসের বিজয়ে মমতা দিদিকে অভিনন্দন জানাই। জনগণের আকাঙ্ক্ষা পূরণে ও কোভিড-১৯ মহামারি কাটিয়ে উঠতে কেন্দ্রীয় সরকার পশ্চিমবঙ্গ সরকারকে সম্ভাব্য সব ধরনের সহযোগিতা করবে।’

বিধানসভার মোট আসন ২৯৪টি থাকলেও নির্বাচনের মধ্যে দুই প্রার্থীর মৃত্যু হওয়ায় দুটি আসনের নির্বাচন স্থগিত হয়। ফলে, আজ ২৯২টি আসনের ভোট গণনা শুরু হয়েছে কড়া নিরাপত্তার মধ্যেই।\

আরও পরুন=পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির বিপর্যয়ের কারণ জানতে চেয়েছেন দলের কেন্দ্রীয় জ্যেষ্ঠ নেতা ও ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। রোববার দুপুরে সাংবাদিকদের এই তথ্য জানিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য বিজেপির অন্যতম নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয়।

রোববার সাংবাদিকদের কৈলাস বিজয়বর্গীয় বলেন, ‘ভোটের ফল এমন হলো কী করে, তা জানতে চেয়েছেন অমিতজী। তিনি আরো বলেছেন, পূর্ণাঙ্গ ফল মেলার পর বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব বিষয়টি পর্যালোচনা করবে।’

‘এ বার, ২০০ পার’ স্লোগান নিয়ে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনে অংশ নিয়েছিল ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি)। তবে নির্বাচনের ভোট গণনার প্রথম পর্বে সেই স্লোগানের বদলে বিজেপি কার্যত ১০০ আসন পার হওয়া নিয়ে ভাবছে।ভোটের সর্বশেষ ফলাফলে দেখা গেছে, পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভার ২৯৪ টি আসনের মধ্যে ২০৪ টিতে জয়ী হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস, বিজেপি জয় পেয়েছে ৮৪ টি আসনে।

অর্থাৎ, একশ আসনেও জয়ী হতে পারেনি বিজেপি। এমনকী নির্বাচনকে ঘিরে যারা তৃণমূল ও অন্যান্য দল থেকে বিজেপিতে গিয়েছিলেন, তাদের অধিকাংশই জিততে পারেননি।এদিকে এই হারের জন্য দায়ী করে দলের কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব তথা নরেন্দ্র মোদি ও অমিত শাহর দিকে আঙুল তোলা শুরু করেছেন বিজেপির রাজ্য নেতাদের একাংশ।সরাসরি মোদি-শাহর নাম মুখে না নিলেও রাজ্যের এক শীর্ষ নেতা বলেন, ‘সেনাপতি হয়েছিলেন যারা জিতলে তারা কৃতিত্ব নিতেন। এখন হারের দায়ও তাদেরই নিতে হবে।’