যুক্তরাষ্ট্রের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি করলেন দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী সুরাইয়া

দৃষ্টিপ্রতিবন্ধি হয়েও অসাধ্য সাধন করেছেনে বাংলাদেশের মেয়ে সুরাইয়া আক্তার।যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অব ইলিনয় থেকে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেছেন এই অদম্য মেধাবী। তার স্বামীও একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রতিবন্ধিতা বিষয়ে পিএইচডি শেষ করেছেন।জানা গেছে, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগ থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন সুরাইয়া। ২০১৭ সালে স্বামীর সাথে যুক্তরাষ্ট্রে পারি জমান তিনি। এরপর নানা প্রতিবন্ধকতা জয় করে ইলিয়ন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রথম আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী

শিক্ষার্থী হিসেবে পিএইচডি শেষ করেন সুরাইয়া।তিনি জানান, পিএইচডি শেষ করার পর যুক্তরাষ্ট্রের ইন্ডিয়ানায় একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে তার স্বামীর চাকরি হয়েছে। একই বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তাকেও একটি চাকরির প্রস্তাব দিয়েছে। তবে আপাতত ছয় মাস তিনি তার দুই ছেলেকে সময় দেবেন।স্ত্রী সুরাইয়া আক্তারের পিএইচডি শেষ করার পর স্বীকৃতি প্রদান অনুষ্ঠানের ছবি পোস্ট করে মিজানুর রহমান ফেসবুকে লিখেছেন, বিয়ের প্রথম দিনই স্ত্রীর কাছে স্ত্রীর স্বপ্নের কথা জানতে চেয়েছিলেন। তিনি জানিয়েছিলেন,

তার বাবা খুব খুশি হবেন যদি তিনি বিশ্বের নামকরা কোনো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি শেষ করতে পারেন। মিজানুর লিখেছেন, সেই দিনই তিনি তার স্ত্রীর এই স্বপ্ন পূরণে পাশে থাকবেন বলে অঙ্গীকার করেছিলেন। এখন স্ত্রীর সেই স্বপ্ন বাস্তব হয়েছে।সুরাইয়া-মিজানুর দম্পতির পরিচয় হয় প্রতিবন্ধিতা সূত্রেই। প্রতিবন্ধীবান্ধব সমাজ গড়ার স্বপ্ন দেখেন তার স্বামী মিজানুর রহমান।

২০০৮ সালে বাংলাদেশে গড়ে তোলেন ফিজিক্যালি–চ্যালেঞ্জড ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন (পিডিএফ) নামের একটি সংগঠন। এ সংগঠনে কাজের মাধ্যমেই সুরাইয়া আক্তারের সঙ্গে পরিচয় হয়েছিল মিজানুর রহমানের। মিজানুরও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ইতিহাস বিভাগে পড়াশোনা করেছেন। নানা প্রতিবন্ধকতা পেছনে ফেলে ২০১২ সালে তিনি সুরাইয়াকে বিয়ে করেন। স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষ শেষ করে বিয়ে, তৃতীয় বর্ষে পড়ার সময় প্রথম সন্তানের জন্ম। তারপর পিএইচডি করতে গিয়ে ছোট ছেলের জন্ম।