লকডাউনে বিদেশগামী কর্মীদের দারুণ সুখবর দিল মন্ত্রণালয়

করোনা সংক্রমণরোধে কঠোর বিধি নিষেধের মধ্যে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ ঘোষণা করায় বিপাকে পড়েছেন অনেক প্রবাসী কর্মীরা। এ অবস্থায় তাদের জন্য বিশেষ ফ্লাইটের ব্যবস্থা করার উদ্যোগ নিয়েছে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়।

করোনা পরিস্থিতির কারণে ২১ এপ্রিল পর্যন্ত আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ রয়েছে। ফলে আটকা পড়েছেন অনেক বিদেশগামী। বিশেষ করে শ্রমিকেরা পড়েছেন বিপদে। এ অবস্থার মধ্যে সরকারের এক সভায় এ সিদ্ধান্ত হলো। সভাটি ভার্চ্যুয়ালি হয়েছে।

মধ্যপ্রাচ্যের চারটি দেশ সৌদি আরব, ওমান, কাতার, সংযুক্ত আরব আমিরাত এবং সিঙ্গাপুরের জন্য এই বিশেষ ফ্লাইটের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

আরও প্রুন=সম্প্রতি আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাতে লণ্ডভণ্ড হয়ে গিয়েছে ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জের ছোট দ্বীপ দেশ সেন্ট ভিনসেন্ট। সেখানে এখন পরিষ্কার ও খাবার পানিই খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। হাজার হাজার মানুষ বাসস্থানও হারিয়েছেন। দ্বীপটির মানুষ মানবেতর জীবন কাটাচ্ছেন। এই পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের সাহায্য চেয়েছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্রিকেটার কেসরিক উইলিয়ামস।

চলতি মাসের গত ৯ এপ্রিল লা সোফখিয়েহ আগ্নেয়গিরিতে প্রথমবারের মতো অগ্ন্যুৎপাত হয়েছিল। তারপরে আরও বেশ কয়েকবার হয়েছে। ফলে ক্যারিবিয়ান দ্বীপ সেনগ ভিনসেন্ট একপ্রকার ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে। নিজ জন্মভূমির এই দুর্দিনের ক্যারিবিয়ান পেসার কেসরিক উইলিয়ামস। যে কিনা বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ বিপিএলে খেলছেন। (রাজশাহী কিংস ও সবশেষ চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের হয়ে)। সেই সূত্র ধরে বাংলাদেশের সাহায্য প্রার্থনা করেছেন এই পেসার।

এদিকে ভিডিও বার্তায় চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের মাধ্যমে জানিয়েছেন, ‘সেইন্ট ভিনসেন্টে কোনো পরিষ্কার পানি নেই। ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জের সেন্ট ভিনসেন্টে যেটা হচ্ছে তা খুবই দুঃখজনক। আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাতে সম্পূর্ণ সেন্ট ভিনসেন্ট পরিষ্কার পানি শূন্য হয়ে পড়েছে এবং হাজার হাজার মানুষ বাড়িঘর হারিয়েছে। আমরা তাদের জন্য প্রার্থনা করি এবং নিকটবর্তী দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানাই তাদেরকে সাহায্য করার জন্য। আমাদের কেসরিক উইলিয়ামসও সেন্ট ভিনসেন্টের এবং সে মানুষকে যথাসাধ্য সাহায্য করার চেষ্টা করছে।’